দেশবাসীর প্রতি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ঈদ শুভেচ্ছাবার্তা

আসসালামু আলাইকুম।
প্রিয় দেশবাসী,
দীর্ঘ একমাস সিয়াম-সাধনা শেষে আমাদের মাঝে আগমন করেছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী মানবিক বিপর্যয়, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নির্যাতিত মুসলিম উম্মাহর আর্তনাদ এবং দেশের চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতাসহ নানাবিধ উদ্বেগ-উৎকন্ঠা ও সংকটময় পরিস্থিতির মধ্যদিয়েই আমরা সিয়াম-সাধনার দিনগুলো অতিক্রম করছিলাম। এরই মাঝে খুশির বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে চলে এলো ঈদ ।

ঈদ মানেই আনন্দ । ঈদ মানেই খুশি । ঈদুল ফিতর যেমন ধনী-গরিব ভেদাভেদ ভুলে এক বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে তুলবার দীক্ষা নিয়ে আমাদের মাঝে আগমন করে, ঠিক তেমনি চলমান করোনা পরিস্থিতিও পার্থিব ক্ষমতা ও ধনঐশ্বর্যের তুচ্ছতাকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে আমাদের মানবতার সবক দিয়ে যাচ্ছে। তাই ঈদুল ফিতরের আনন্দকে শক্তিতে পরিণত করে ইসলামের শাশ্বত দীক্ষা মানবতার মন্ত্রে আমাদেরকে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। পাশাপাশি অতীতের পাপমোচনে অনুতপ্ত হয়ে মহান প্রভুর দরবারে আমাদের একনিষ্ঠ আত্মসমর্পণ করতে হবে। তবেই আমরা আশা রাখতে পারি যে, মহান প্রভু আমাদেরকে এই দুর্যোগ থেকে পরিত্রাণ দিবেন এবং তার অপার অনুগ্রহে আমরা এই সংকট কাটিয়ে একটি শান্তিময় পৃথিবী গড়ে তুলতে সক্ষম হবো।

প্রিয় দেশবাসী,
আমাদের প্রিয় মাতৃভূমী বাংলাদেশ এবং বিশ্বব্যাপী মুসলিম উম্মাহ আজ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি বরাবরই বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শনকারী প্রতিবেশী রাষ্ট্রের আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে গিয়ে দেশের আলেম সমাজ আজকে শাসক গোষ্ঠীর রোষানলের শিকার। দেশের প্রায় অর্ধশত শীর্ষস্থানীয় আলেমসহ সারাদেশে অসংখ্য আলেম-উলামা কারা প্রকোষ্ঠে মুক্তির প্রহর গুনছে। দেশের মানুষের ভোটাধিকার , বাকস্বাধীনতা, গণমাধ্যমে স্বাধীন মতপ্রকাশের পরিবেশ আজ ভূলুণ্ঠিত । বিরোধী মতের উপর শাসকগোষ্ঠীর দমন-পীড়নে গোটা দেশ যেন আজ কারাগারে পরিনত হয়েছে। সর্বোপরি দেশে বর্তমানে চরম এক রাজনৈতিক শূন্যতা বিরাজমান। এহেন পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পেতে এই মুহূর্তে জাতীয় ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই।

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দেশের মানুষের জনজীবন এমনিতেই চরমভাবে বিপর্যস্ত। তার উপর সরকারের নানান সীদ্ধান্তহীনতা, চিকিৎসা খাতে অব্যাবস্থাপনা, পাশাপাশি দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি দেশের মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত মানুষের নাভিশ্বাস তুলেছে। নির্দিষ্ট একটি মহলকে ব্যাবসায়িক সুবিধা দিতে গিয়ে দেশের জনগনের সময়মত টিকাপ্রাপ্তিকে অনিশ্চয়তা মধ্যে ঠেলে দেয়া হয়েছে।

করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশের শিক্ষাখাত। বিশ্বের উন্নত দেশের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখলেও সেসব দেশের ন্যায় পাঠদান ও মেধা যাচাইয়ের বিকল্প কোনো পদ্ধতি বিগত এক বছরের অধিক সময়েও সরকার বের করতে পারেনি। ফলে ঢালাওভাবে পাঠদান বন্ধ এবং অটোপাশ পদ্ধতির ফলে ভবিষ্যতে একটি মেরুদণ্ডহীন প্রজন্ম তৈরির আশংকা দেখা দিয়েছে। অতএব বিকল্প ব্যবস্থাপনার অপ্রতুলতা এবং শিক্ষার বিকল্পহীনতা এই দুই বাস্তবতাকে বিবেচনায় নিয়ে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের পর সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার জন্য সরকারের কাছে আমরা জোর দাবি জানাচ্ছি।

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মুসলমানরা আজ নানাভাবে নির্যাতিত। কাশ্মীর, চিন, মায়ানমারে মুসলমানদের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে দিনের পর দিন। সেইসাথে সম্প্রতি ফিলিস্তিনের আল-আকসায় নামাজরত মুসল্লিদের উপর দখলদার ইসরাইলী বাহিনীর বর্বরোচিত হামলা সারা পৃথিবীর নিপীড়িত মুসলমানদের মর্মবেদনা-ই প্রকাশ করেছে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানাচ্ছে, গত কয়েক দিনে জেরুজালেম ও অধিকৃত পশ্চিম তীরজুড়ে ইসরায়েলি হামলায় সাতশরও বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন এবং নারী ও শিশুসহ অন্তত ২৮ জন নিহত হয়েছেন । পূর্ব জেরুজালেম, পশ্চিম তীর ও গাজা ভূখণ্ডের প্রকৃত অধিবাসী ফিলিস্তিনিদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি জবরদখল করে প্রতিনিয়তই তাদেরকে নিজ বসতভিটা থেকে উচ্ছেদ করছে দখলদার ইসরায়েল।এহেন পরিস্থিতিতে বিশ্বমুলিমের ঐক্য ও সংহতির অপরিহার্যতা দৃশ্যমান হয়ে ওঠেছে। সেই লক্ষ্যে মুসলিমবিশ্বের নেতাদের কাছ থেকে আমরা কার্যকর ভূমিকা আশা করছি।

প্রিয় দেশবাসী,
দেশ ও মুসলিম উম্মার এই ক্রান্তিকালে দল ও মতের উর্ধ্বে উঠে সকল মতপার্থক্য পেছনে ফেলে আমাদের কে এখন ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ঈদুল ফিতরের শিক্ষাকে নিজেদের বাস্তব জীবনে কাজে লাগিয়ে একটি সুখী-সমৃদ্ধ শান্তিময় সমাজ গড়ার প্রত্যয়ে সকলকে পরস্পরের ভ্রাতৃত্ব বন্ধন আরো সুদৃঢ় করতে হবে। তাই আসুন, কোরানের নির্দেশিত পথে একটি শান্তিময় দেশ ও সমাজ গড়ার শপথ নিয়ে আজকের এই দিনটিকে স্বার্থক করে তুলি।

পরিশেষে দেশের সর্বপ্রাচীন রাজনৈতিক দল, শতবর্ষী কাফেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সর্বস্তরের দেশবাসীর প্রতি পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জনিয়ে শেষ করছি । সকলকে ঈদ মোবারক।

সবাই সুস্থ থাকুন, নিরাপদে থাকুন ।
আল্লাহ হাফেজ ।

শুভেচ্ছান্তে:

মাওলানা জিয়া উদ্দীন
সভাপতি( ভারপ্রাপ্ত)

মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া
মহাসচিব (ভারপ্রাপ্ত)
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ