রাষ্ট্রের কর্তাদের উদাসীনতায় কাঠালবাড়িতে ২৭জন মানুষকে জীবন দিতে হয়েছে -ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন

রাষ্ট্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীনতা, উদাসীনতা এর মুনাফাখোর দুর্ণীতিবাজদের অতি লোভের কারনে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে মাওয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া স্পিডবোট কাঠালবাড়িতে নোঙ্গর করা বালুভর্তি জাহাজের সাথে লাগিয়ে দিয়ে নারী, শিশুসহ ২৭ জন তরতাজা মানুষকে লাশে পরিণত করেছে।

মাহে রমজানের শেষে পবিত্র ঈদুল ফিতরের পূর্বে এমন ঘটনায় নিহতদের পরিবারে যাদের কারণে শোকের ছায়া নেমে এসেছে তাদেরকে দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবী জানিয়েছেন ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মাদ আশরাফ আলী আকন ও সেক্রেটারী জেনারেল হাফেজ মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান।

গণমাধ্যমে প্রেরিত এক যুক্ত বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, নিহতদের মধ্যে যারা পরিবারের অন্যতম উপার্জনকারী ব্যাক্তি ছিলেন তাদের পরিবার পরিচালনার জন্য পরিবারের একজনকে সরকারী চাকুরী এবং নিহতদের পরিবার প্রতি ৫ লাখ টাকা আপদকালীন ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন নেতৃবৃন্দ বলেন, মাওয়া ঘাটসহ দেশের সকল নদীবন্দরের স্পিডবোট এবং সকল নৌযান চলাচলে সরকারী বিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করে পরিচালনার জন্য নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়, কোষ্টগার্ড ও নৌপুলিশকে জবাবদিহিতামূলক প্রত্যেক যানের ছবিসহ যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে হবে।