হেফাজত কর্মী-পুলিশের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, আহত ৪

নিউজ ডেস্ক: হেফাজত ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব মামুনুল হককে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে হেফাজত নেতাকর্মীরা কেরানীগঞ্জের মান্দাইল এলাকায় বিক্ষোভ করে।এ সময়ে তারা পুলিশের বাধার সম্মুখীন হয়।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে মান্দাইল জামিয়া উলুম মাদ্রাসার সামনে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

হেফাজত নেতা-কর্মীরা ইটে নিক্ষেপ করে তিন পুলিশসহ মোট চারজন আহত করেভ। আহতরা হলেন, কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এএসআই বোরহান, এএসআই বদরুল, এএসআই নাজমুল ও আওয়ামী লীগের সমর্থক রাজিব। এসময় মামুন (২৯) নামে হেফাজতের এক কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা ও আহত ব্যক্তিরা জানিয়েছে, জোহরের নামাজের পর মান্দাইল মাদ্রাসার ভেতর থেকে কয়েশ হেফাজত কর্মী একসাথে হয়। পরে তারা রাস্তায় বেরিয়ে আসে। এসময় তারা মামুনুল হকের মুক্তি দাবি করে সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। এসময় হেফাজতের কর্মীরা তার চায়ের দোকান ভাঙচুর করে এবং তাকে মারধর করে।

কেরানীগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন কবীর সাংবাদিকদের জানান, সোমবার বেলা ৩টার দিকে তিন থেকে চার শতাধিক নেফাজত কর্মী সমর্থক রাস্তায় বেরিয়ে নাশকতার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে।

োো পুলিশের সঙ্গে হেফাজত কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে তার ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। হেফাজত কর্মীদের ছোড়া ইটের আঘাতে পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছেন। এছাড়াও তারা আওয়ামী লীগের একজন কর্মীকে মারধর করেছেন।
এ ঘটনার পর কেরানীগঞ্জে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন এবং নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।আরটিভি