বঙ্গবন্ধুর বদৌলতে মামুনুল প্রাণে রক্ষা পাচ্ছেন

 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশে যে ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান এবং আইনি ব্যবস্থা প্রণয়ন করেছিলেন, তার কারণেই মামুনুল হক ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী ব্যভিচারের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড থেকে রক্ষা পাচ্ছেন। হেফাজতসহ কিছু উগ্রপন্থী ধর্মভিত্তিক সংগঠন বাংলাদেশে ইসলামী বিপ্লব সংঘটিত করে ইসলামিক শরিয়া আইনভিত্তিক শাসনব্যবস্থা কায়েম করার ঘোষণা দিয়ে আসছে।
ইসলামিক শরিয়া আইন বহাল থাকলে আজ ব্যভিচারের অপরাধে মামুনুল হকের মৃত্যুদণ্ড হতো। স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু বাস্তবিক কারণেই একটি ধর্মনিরপেক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিলেন। রাষ্ট্রীয় আইনি ব্যবস্থার (লিগ্যাল সিস্টেম) শ্রেণীকরণ/ক্লাসিফিকেশন কয়েক রকমের। একটি মৌলিক শ্রেণীকরণ হচ্ছে, ধর্মভিত্তিক বা প্রাকৃতিক আইন ব্যবস্থা ( Divine Law or Natural Law) এবং মানবসৃষ্ট আইন (Positive Law) বা ধর্মনিরপেক্ষ আইনব্যবস্থা। ভারতীয় উপমহাদেশের কয়েকশ বছরের আইন ব্যবস্থাসমূহ পর্যালোচনা ক্রমে বাস্তবিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে জাতির পিতা মানবসৃষ্ট আইন বা পজিটিভ ল’ ভিত্তিক আইনব্যবস্থাকে (যা ধর্মনিরপেক্ষ আইনব্যবস্থা হিসেবেও পরিচিত) স্বাধীন বাংলাদেশের আইনব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করেন। জনগণের সার্বভৌমত্ব এবং জনগণের কল্যাণই এ আইন ব্যবস্থার মূলভিত্তি।
জাতির পিতা উপলব্ধি করেছিলেন, পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী ধর্মের দোহাই দিয়েই আমাদের ওপর তাদের অন্যায়-অত্যাচার চাপিয়ে দিয়েছিল। ধর্মকেই তারা তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছিল। বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের সময় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এ বিষয়ে জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এছাড়া, ব্রিটিশ শাসন-পূর্ববর্তী সময়ে মুঘল শাসনামলে ভারতবর্ষে যতটুকু ইসলামিক শরিয়া আইন চালু ছিল, সেটি নানা দিক থেকে ত্রুটিপূর্ণ ছিল। তাতে ইসলামের অনুশাসন বাস্তবায়িত হয়নি।

 

মধ্যযুগে ইউরোপে ধর্মভিত্তিক যে রাষ্ট্র ব্যবস্থা ছিল, সেটিও মানুষের কল্যাণের পরিবর্তে অকল্যাণেই ব্যবহার হয়েছে। আমাদের মতো আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন দেশগুলোতে ইসলামিক অপরাধ আইন বা ‘ইসলামিক ক্রিমিনাল জাস্টিস’ বাস্তবিক অবস্থার কারণেই সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন করা যায়নি। এসব কারণে জাতির পিতার নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশের গণপরিষদ ইসলামিক আইনকে বাংলাদেশে পার্সোনাল আইন ( Personal Law) হিসেবে গ্রহণ করেন। এই আইনের মাধ্যমে সম্পত্তির উত্তরাধিকার, বিবাহ, ভরণ-পোষণ, বিবাহ বিচ্ছেদ, দেন-মোহর, শিশুর অভিভাবকত্ব, দান, ট্রাস্ট ও ট্রাস্ট সম্পত্তি, ওয়াকফ সম্পর্কিত এবং অপরাপর ব্যক্তিগত বিষয়সমূহ ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। পৃথিবীর অনেক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রে এ ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। জাতির পিতা এ দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারভিত্তিক যে শাসনব্যবস্থা প্রবর্তন করেছিলেন, সেটি ইসলামিক জুরিসপ্রুডেন্সের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

 

হেফাজতেসহ কিছু উগ্রপন্থী সংগঠনের নেতারা বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রে শরিয়া আইন বাস্তবায়ন করতে চায়। এই লক্ষ্যে তারা এদেশে ইসলামী বিপ্লব সংঘটিত করতে চায়। মামুনুল হকসহ এসব মিথ্যাবাদী ও ভণ্ড ব্যক্তিদের মুখোশ উম্মোচিত হচ্ছে । নিজেরা ব্যক্তি জীবনে সব ধরনের অনৈতিক, অপরাধমূলক ও ইসলাম পরিপন্থী কাজ করছে, অথচ তারা ইসলাম ধর্মের নামে এদেশের ধর্মভীরু মানুষ ও কোমলমতি শিশুদের প্রতিনিয়ত ধর্মের ভয় দেখিয়ে প্রতারিত করছে। তারা সমাজে নিজেদের ইসলামের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থাপন করছে। কথায় কথায় তারা ধর্মকে বিক্রি করছে; শুধু নিজেদের স্বার্থে তারা সমাজে ধর্মান্ধতার বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে। মামুনুল হক যে কাজটি করেছে, এটি ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী ব্যভিচার, যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশেই এই ইসলামিক শরিয়া আইন চালু রয়েছে। অধিকাংশ দেশেই পাথর নিক্ষেপ করে ব্যভিচারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। জাতির পিতা সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে যদি Positive Law (জুরিসপ্রুডেন্সের ভাষায়) বা ধর্মনিরপেক্ষ আইন ব্যবস্থা চালু না করে ইসলামিক আইন চালু করতেন, তাহলে মামুনুল হককে ব্যভিচারের অপরাধে পাথর নিক্ষেপ করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতো।

 

আবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যদি স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা না করতেন অর্থাৎ বাংলাদেশ যদি পাকিস্তানের অংশ হিসেবে থাকতো, যেটি মামুনুল হকের বাবাসহ বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী কিছু ব্যক্তি চেয়েছিল, তাহলে পাকিস্তানে পরবর্তীকালে জারিকৃত ও বর্তমানে প্রচলিত শরিয়াভিত্তিক আইন Hudood Ordinances বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হতো। এই Hudood প্যাকেজ আইনের আওতায় ১৯৭৯ সালে পাকিস্তানে The Offence of Zina (Enforcement Of Hudood) Ordinance (যা ‘জিনা অর্ডিন্যান্স’ হিসেবে বহুল পরিচিত) জারি করা হয়। এই আইনের ধারা ৫ অনুযায়ী কোন বিবাহিত মুসলিম ব্যভিচারের অপরাধ করলে তাকে জনসম্মুখে পাথর নিক্ষেপ করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার বিধান রয়েছে। অপরাধী অমুসলিম হলে তাকে জনসম্মুখে একশ বেত্রাঘাতের বিধান রয়েছে। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ সৃষ্টি না করলে আজ এই আইনেই জনসম্মুখে পাথর নিক্ষেপ করে মামুনুল হকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতো। এই মামুনুলরাই বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী; এরা এখনও পাকিস্তানের জন্য মায়াকান্না করে।

 

মামুনুল হকের ব্যভিচার প্রমাণিত। কারণ সে নিজেই ব্যভিচারের কথা স্বীকার করেছে। প্রথমত, তার সাথে সোনারগাঁয়ের রিসোর্টে থাকা নারীর পরিচয় হিসেবে লিখেছে তার নিজের স্ত্রীর নাম। ওই নারী তার স্ত্রী হলে ওই নারীর নামই রেজিস্টার খাতায় লিখতো। দ্বিতীয়ত, মামুনুল তার নিজের স্ত্রীকে টেলিফোনে বলেছিলেন, ওই নারী শহিদুলের স্ত্রী। স্ত্রীকে বলেছিলেন, কেবল পরিস্থিতির কারণে সে ওই নারীকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী বলেছিলেন। তিনি তার স্ত্রীকে অনুরোধ করেছিলেন, সে যেন এই কথাই সবাইকে বলে। মামুনুল যদি তার সাথে হোটেলে থাকা ওই নারীকে সত্যিই বিয়ে করতো, তাহলে ওই বিশেষ পরিস্থিতিতে নিজেকে বাঁচানোর জন্য অবশ্যই তার স্ত্রীকে আসল ঘটনা বলতো। তৃতীয়ত, মামুনুলের বোন টেলিফোনে মামুনুলের স্ত্রীকে অনুরোধ করেছিল, সে যেন অন্য কাউকে তাদের শেখানো কথার বাইরে কথা না বলে। মামুনুলের স্ত্রীকে অনুরোধ করলো, সে যেন এটি বলে যে, মামুনুলের দ্বিতীয় বিয়ের কথা যে জানতো। তখন মামুনুলের স্ত্রী তার স্বামীর বোনকে জিজ্ঞেস করেছিল, মামুনুল আসলে বিয়ে করেছে কিনা। তার বোন তখন বলেছিল, বিয়ের কথা সত্যি নয়। মামুনুল কে বাঁচানোর জন্যই তারা এ কথা বলছেো; মামুনুলের স্ত্রী যেন এই নিয়ে কোন চিন্তা না করে।

 

মামুনুলের স্ত্রীর কথোপকথন শুনে মনে হয়নি যে মামুনুল বা তার ভাইবোনেরা তার স্ত্রীর ভয়ে কোন কিছু লুকিয়ে রাখছে। বরং মনে হয়েছে, মামুনুলের স্ত্রী নিরীহ প্রকৃতির এক সহজ সরল নারী, যার ওপর যেকোনো সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেয়া যায়। তাই মামুনুলের স্ত্রীকে মিথ্যা বলার কোন কারণ নেই। চতুর্থত, সাংবাদিকদের জেরার মুখে মামুনুল বলেছিলেন, তার সাথে থাকা নারী তার বিবাহিত দ্বিতীয় স্ত্রী। কিন্তু আজও ওই কথিত বিয়ের কাবিননামা দেখাতে পারেননি। পঞ্চমত, ঘটনার পরবর্তী সময়ে ওই নারী টেলিফোনে মামুনুল হকের এক লোকের কাছে বার বার জিজ্ঞেস করছিল, বিয়ের স্থান ও তারিখ সম্পর্কে কেউ জিজ্ঞেস করলে সে কী উত্তর দেবে। ওই নারীকে মামুনুল বিয়ে করে থাকলে সে সহজেই এই তথ্য দিতে পারতো। এই তথ্য জানার জন্য তৃতীয় ব্যক্তিকে তার জিজ্ঞেস করতে হতো না। ষষ্ঠত, ওই নারীর নিজের ছেলে এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে মামুনুলের ব্যভিচারের ঘটনাসমূহ প্রকাশ করে এবং রাষ্ট্রের কাছে মামুনুলের বিচার দাবি করে।