দুবাই আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি জামিল

 

দুবাই আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় এবারের আসরে বাংলাদেশের প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন সিলেটের কৃতি সন্তান হাফেজ জামিল আহমদ।

সম্প্রতি দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটে বাছাই পরীক্ষায় তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক এ প্রতিযোগিতায় বিশ্বের শতাধিক দেশের প্রতিযোগীর সঙ্গে তিনি প্রতিযোগিতা করবেন। আগামী রমজান মাসে বিশ্বের বৃহত্তম এ কোরআন প্রতিযোগিতা দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

 

সিলেট জেলার জৈন্তাপুর উপজেলার দরবস্ত সেনগ্রামের মাওলানা জহীর উদ্দিনের বড় ছেলে হাফেজ মিল আহমদ পরিবারের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল-আইনে বসবাস করছেন। সে আল-আইন আল হামিদিয়া প্রাইভেট স্কুলে ১২ গ্রেটে অধ্যয়নরত।
উল্লেখ্য, গত ২৫ বছর থেকে বিশ্বের প্রায় শতাধিক দেশের প্রতিযোগীদের নিয়ে এ আয়োজন হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার এ প্রতিযোগিতা আমিরাতে বসবাসরতদের মাঝে সীমাবদ্ধ।

 

করোনাভাইরাসের কারণে গত বছর এই প্রতিযোগিতা না হলেও এবার দুবাই আন্তর্জাতিক কোরআন সংস্থা সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত পৃথিবীর সকল দেশের হাফেজদেরকে নিজ নিজ দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে প্রতিযোগী নির্বাচিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
সে হিসেবে গত মঙ্গলবার ৩১ মার্চ বাংলাদেশের হাফেজেদের নিয়ে দুবাই বাংলাদেশ কনসুলেটে বাছাই পরীক্ষার মাধ্যমে হাফেজ জামিল আহমদকে নির্বাচিত করে।

 

পৃথিবীর প্রত্যেক দেশ নিজ দেশে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে একজনকে বাছাই করে সে প্রতিযোগিতায় প্রেরণ করে থাকে কিন্তু করোনার কারণে এবার দূতাবাসের মাধ্যমে এটি করা হয়েছে।

হাফেজ জামিল আহমদ আরব আমিরাতের শারজা আল দাহিদ মারকাজ বিন সালেম ২০১৪ সালে থেকে হেফজ সম্পন্ন করেন। সে দুবাই টিভিসহ আমিরাতের বিভিন্ন প্রদেশে কোরআন প্রতিযোগিতায় কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জন করেন। ৪ ভাই-বোনের মাঝে জামিল সবার বড়। তার বাবা মাওলানা জহীর উদ্দিন আল আইনে একটি মসজিদের ইমাম।