নারীর প্রতি সব ধরণের সহিংসতা রোধে শরিয়াহ আইনের বিকল্প নাই: ‍শেখ ফজলে বারী মাসউদ

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেছেন, “পৃথীবিতে যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর”, দেশ গড়তে নারী ও পুরুষদের অবদানের ব্যাপারে জাতীয় কবি যথার্থই বলেছেন। যদিও আজ সর্বত্র নারী জাতিকে পশ্চিমা সংস্কৃতির মতো আমাদের দেশেও ভোগ্য পন্যের বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে ব্যবহার করা হয়। পরিবার, সমাজ, অফিস, আদালত থেকে শুরু করে সব জায়গায় নারীদেরকে নানান প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে, নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার হতে হচ্ছে। তাদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত তো হচ্ছেই না বরং প্রাপ্য অধিকার খর্ব করা হয়ে থাকে। নারী জাতির প্রাপ্য সম্মান, অধিকার নিশ্চিত করতে এবং তাদের প্রতি সব ধরনের সহিংসতা রোধে ইসলামী শরিয়াহ আইনের বিকল্প নাই।
সোমবার ০৮ মার্চ শুক্রবার রাজধানীর ভাটারাস্থ আস’সাঈদ অডিটরিয়ামে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের এক জরুরী বৈঠকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস সম্পর্কে আলোচনার সময় নারীদের প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসউদ এই মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, নারী উন্নয়নে পশ্চিমা চিন্তা চেতনা গ্রহণের দ্বারা নারীদের অধিকার ও মর্যাদা কখনও প্রতিষ্ঠিত হয়নি। অন্য দিকে ইসলাম সাড়ে চৌদ্দশত বছর আগে এ নারীকে চরম তাচ্ছিল্যের জায়গা থেকে তুলে এনে সম্মানের আসনে অধিষ্ঠিত করেছে। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘মায়ের পদতলে সন্তানের জান্নাত’। কাজেই নারীদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা, তাদের প্রতি সহিংসতা ও নির্যাতন বন্ধ করতে হলে বিজ্ঞান সম্মত নির্দেশনা রয়েছে শরঈ আইনে। এ শরিয়াহ আইন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আামাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি সরকারের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, ‘জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি-২০১১’ প্রণয়নের সময় দেশের সকল ওলামায়ে কিরাম বলেছিলেন এ নীতিমালা নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করতে পারবে না বরং উস্কে দিবে। আজ সে কথাই প্রমাণিত হয়েছে। অতএব, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি যদি নারীদের শুভাকাঙ্খি হোন তবে অনতিবিলম্বে ‘জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি-২০১১’ বাতিল করে দেশের ওলামায়ে কিরামের মাধ্যমে ইসলামের আলোকে নারী উন্নয়ন নীতিমালা প্রণয়ন করুন। নারী জাতি আপনাকে অনাদীকাল স্মরণে রাখবে।
এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওলানা নুরুল ইসলাম নাঈম, প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার গিয়াস উদ্দিন (পরশ), অর্থ সম্পাদক ডাক্তার মুজিবর রহমান, ছাত্র ও যুব সম্পাদক এডভোকেট শওকত আলী হাওলাদার, মহিলা ও পরিবার সম্পাদক শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।