পবিত্র জুমার মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে স্বাগত জানাবেন মুসলিমরা

ইসলামী জার্নাল : যদিও মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে আতঙ্কে রয়েছে বিশ্ববাসী। বিশ্বের প্রায় বেশির ভাগ মানুষ ঘরবন্দী। এরমধ্যে যুক্ত হচ্ছে নতুন বছর ২০২১।

আল্লাহতায়ালার দরবারে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে তিনি যেন নতুন বছরে করোনামুক্ত বিশ্ব দান করেন, আমিন।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের অপার কৃপায় পবিত্র জুমার মধ্য দিয়ে আমরা নতুন বছরকে স্বাগত জানাব, আলহামদুলিল্লাহ।

আমরা মুসলমানরা সৌর বছরের পাশাপাশি চান্দ্র বছরের মাধ্যমেও বছরের সূচনা করি। এই চান্দ্র পঞ্জিকা শুধু মুসলমান নয় বরং পৃথিবীর অনেক জাতি প্রাচীন যুগে চান্দ্র পঞ্জিকার মাধ্যমেই বছর শুরু করত।

সাধারণত দেখা যায় নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে লোকেরা হৈ-হুল্লোড় ও ক্রীড়া-কৌতুক আর জাগতিক আনন্দ-উল্লাসের মাঝে অতিবাহিত করে সারা রাত কাটিয়ে দেয়, আর এতে এমন কোন অপকর্ম নেই যা পাশ্চাত্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে না করা হয়।

একজন মুসলমান হিসেবে আমাদেরকে মনে রাখতে হবে যে, থার্টি ফাস্ট নাইট কোনো ইসলামিক সংস্কৃতি নয়। মুসলিম সভ্যতা ও সংস্কৃতিতে এটি একটি অপসংস্কৃতি।

সে কারণে একজন রুচিশীল ও সচেতন ঈমানদার মুসলমান কখনো থার্টি ফাস্ট নাইট সংস্কৃতি উদযাপন করতে পারে না।

হজরত আলি (রা.) বলেছিলেন, তুমি রাতের আঁধারে এমন কোনো কাজ কোরো না, যার কারণে তোমাকে দিনের আলোয় মুখ লুকাতে হবে। আসলে আজ পৃথিবীর সংখ্যাগরিষ্ঠ শ্রেণির ধর্মের চোখ অন্ধ হয়ে গিয়েছে, তাই তাদের দৃষ্টি সেখানে পৌঁছা সম্ভব নয় যেখানে একজন মুমিনের দৃষ্টি পৌঁছে।

আমাদের প্রতিটি দিন যেন বিশ্বনবী হজরত মোহাম্মদের (সা.) আদর্শে অতিবাহিত দিন হয়। আমরা যেন পবিত্র কোরআন এবং প্রকৃত ইসলামের শিক্ষানুসারে জীবন পরিচালনা করতে পারি।

উল্লেখ্য, আল্লাহতায়ালার কাছে আমাদের সবিনয় প্রার্থনা হে আল্লাহ্! নতুন বছরে তুমি আমাদের জন্য অগণিত কল্যাণ বয়ে আন। প্রতিটি পরিবার, সমাজ এবং বিশ্বকে শান্তিময় করে দাও আর মহামারী করোনা থেকে বিশ্ববাসীকে রক্ষা কর, আমিন।