ঢাকায় পৌঁছেছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ইসলামী জার্নাল : দুই দিনের সফরে ঢাকায় এসে পৌঁছেছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে ইন্দোনেশিয়া থেকে ঢাকায় আসেন তিনি। পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। বাংলাদেশে অবস্থিত তুরস্কের দূতাবাসের নতুন ভবন উদ্বোধন করতেই মেভলুত চাভুসোগলু মূলত সফরে এসেছেন।
কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, পাশাপাশি সফরে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষা বিনিময় ও সাংস্কৃতিক সম্পর্ক জোরদারসহ দুদেশের জনগণের মধ্যে সম্পর্ক বাড়ানোর কাজটি করবেন তিনি।

এদিকে মঙ্গলবার ঢাকায় নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা ওসমান তুরান আনাদোলূ এজেন্সির কাছে বলেছেন, আমরা আশা করি যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু’র এই সফর বাংলাদেশের সাথে আমাদের সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি নতুন এবং আশাব্যঞ্জক অধ্যায় উন্মুক্ত করবে।
তুরান আরো বলেন, দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‘বাণিজ্য ও বিনিয়োগ থেকে শুরু করে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আলোচনা করবেন।

তুর্কি দূতাবাস সূত্রে জানানো হয়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা পৌঁছে মেভলুত চাভুসোগলু বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বাংলাদেশে অবস্থান করবেন।
এই সফরের তিনি ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডে (১১ নম্বর নতুন) বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করবে। এছাড়া বুধবার তিনি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেনের সাথে বৈঠক করবেন।
বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, রাজধানী ঢাকার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠক শেষে দুই মন্ত্রী গণমাধ্যমের সাথে কথা বলবেন।
বুধবার মেভলুত চাভুসোগলু ঢাকায় নবনির্মিত তুর্কি দূতাবাসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। ওই সময় তার সাথে আবদুল মোমেন ও উপস্থিত থাকবেন।
নতুন দূতাবাস ভবনের কথা উল্লেখ করে তুরান বলেন, ‘আমাদের নবনির্মিত দূতাবাস প্রাঙ্গণটি আমাদের বন্ধুত্ব এবং সংহতির দৃঢ় সম্পর্কের প্রতীক হবে।’
তুরান আরো বলেন, দুই মন্ত্রীর বৈঠকের সময় ২০২১ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যোগ দিতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানকে আমন্ত্রণ জানানো হবে।
তুর্কি দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, সফররত তুরস্কের মন্ত্রী গণভবনে বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথেও সাক্ষাৎ করবেন।
চলতি বছরের সেপ্টেম্বরের শুরুতে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আঙ্কারায় নবনির্মিত বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্বোধন করতে তুরস্ক সফর করেছিলেন এবং শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসাবে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়েছিলেন।