দেশের সকল মাদরাসায় ছাত্রলীগের কমিটি করতে হবে; এমপি নিক্সন

দেশের প্রতিটি মাদরাসায় ছাত্রলীগের কমিটি করতে সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছেন ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য এবং আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী (নিক্সন চৌধুরী)।
শনিবার (১২ ডিসেম্বর) রাজধানীর শাহবাগে গৌরব একাত্তর নামের একটি সংগঠনের উদ্যোগে ‘মৌলবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ-প্রতিরোধে জাগরণ’ ব্যানারে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ আহ্বান জানান।
নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘সরকারকে অনুরোধ করবো, যেন প্রত্যেক ইউনিয়ন, ওয়ার্ড, থানা ও জেলা পর্যায়ে যেসব মাদ্রাসা রয়েছে, প্রতিটিতে যেন ছাত্রলীগের কমিটি করে দেন এবং মাদরাসার গভর্নিং বডিতে নির্বাচিত সদস্যদের দিয়ে দেন।’
এসময় মাওলানা মামুনুল হককে জঙ্গি অ্যাখ্যা দিয়ে তাঁর কাছে পাকিস্তানি অর্থ আসে বলে দাবি করেন এমপি নিক্সন।
তিনি বলেন, ‘এই অর্থ কোথা থেকে আসে? সেটা বের করেন? আমরা বারবার আন্দোলনে যাই, আবার থেমে যাই। এবার আমাদের শপথ নিতে হবে যে, চিরতরে এই জঙ্গিবাদকে নির্মূল করবো।’
শাহবাগে একটি মঞ্চ তৈরি করে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হওয়ার সময় মঞ্চের চারদিকে পুলিশ বাহিনী নিরাপত্তা দিয়ে ঘিরে রাখে। এ সময় মঞ্চের পাশে পুলিশি নিরাপত্তা থাকায় তিনি লজ্জিত বলে জানান।
তিনি বলেন, ‘আজ আমি এ মঞ্চে এসে লজ্জিত! পুলিশ বাহিনী দিয়ে আমাদের ঘিরে রাখা হয়েছে। কোনও প্রশাসন দরকার নেই। প্রশাসন দিয়ে আমাদের পাহারা দিতে হবে না। যদি পাহারা দিতে হয়, ওই জঙ্গি মামুনুল হকদের পাহারা দেন। আমরা মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম, আমরা প্রস্তুত হচ্ছি এ মৌলবাদীদের বিপক্ষে আরেকটি যুদ্ধের জন্য।’
তিনি বলেন, ‘১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুই প্রথম মুসলিম ভাইদের সরকারিভাবে হজে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। আজ আমার নেত্রী শেখ হাসিনা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন। সেই হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনে আমরা ছোট ছোট বাচ্চাদের দেখতে পেয়েছিলাম, যাদের বাবা-মা সুন্দর জীবনের জন্য মাদ্রাসায় ভর্তি করেন, যাতে তারা ইসলাম সম্পর্কে বেশি জানতে পারে। কিন্তু এই রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী মমিনুল হকরা তাদের ব্যবহার করে, ধর্মকে অপব্যবহার করছে।’
এমপি নিক্সন আরও বলেন, ‘এই প্রজন্মের সময় আসছে আরেকটা যুদ্ধে নামার। ৯ মাস না, ছয় মাসের মধ্যে এই মৌলবাদীদের পরাজিত করে তাদের পাকিস্তানে পাঠাতে হবে।‘