তোমাদের ঘাড় মটকে বঙ্গোপসাগরে নিক্ষেপ করব নয়ত পাকিস্তান পাঠাব

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে কটূক্তিকারী ও ধর্মীয় উস্কানিদাতা ধর্মান্ধদের বিচার দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশ করেন। একই ইস্যুতে কথা বলেছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিনিয়র নেতারা। তারা বলেন, উস্কানি দিয়ে সাম্প্রদায়িক ইস্যু সৃষ্টিকারীদের কঠোর হাতে দমন করা হবে।

মূর্তি পূজা আর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন দুটি আলাদা বিষয়। তারপরও জাতিরপিতার ভাস্কর্য নিয়ে সম্প্রতি বিরূপ মন্তব্য করেছে হেফাজতের কয়েজন নেতা। এরই প্রতিবাদে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের এই বিক্ষোভ মিছিল। কটুক্তিকারীদের বিচার দাবিতে টিএসসি থেকে রমনা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত মিছিলে অংশ নেয় শত শত নেতাকর্মী। শুধু রাজধানী নয় ঢাকার আশেপাশের জেলা থেকেও মিছিলে অংশ নেয় মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা।

এই ইস্যুতে কটুক্তিকারীদের বিচার দাবি করে ৭ দফা দাবি তুলে ধরেন তারা।

সাবেক বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, তোমাদের ঘাড় মটকে বঙ্গোপসাগরে নিক্ষেপ করব নয়ত পাকিস্তানে পাঠিয়ে দিব।

ভাস্কর্য শিল্পী রাশা বলেন, জাতির পতাকা আজ খামচে ধরেছে সেই পুরনো শকুন।

এদিকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে একটি ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী বিতর্কের সৃষ্টি করছে। সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে এক ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ভাস্কর্য নিয়ে মনগড়া ব্যাখ্যা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশের সংস্কৃতির প্রতি চ্যালেঞ্জ।

কাদের বলেন, সরকারের সরলতাকে যেন তারা দুর্বলতা না ভাবেন। জনগণের শান্তি ও স্বস্তি বিনষ্টের চেষ্টা করলে সরকার জনগণকে নিয়ে রুখে দাঁড়াবে।

শনিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীতে প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফের স্মরণ সভায় যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, কোনো সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর বাড়াবাড়ি সহ্য করবে না সরকার।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য হবে, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য প্রতিষ্ঠা হবে, কোনো অপশক্তি নেই এটাকে ঠেকানোর।

ভাস্কর্য ইস্যুতে উলামা মাশায়েখের নাম দিয়ে কিছু লোক পরিস্থিতি উত্তপ্ত করছে বলেও মন্তব্য করেন এই আওয়ামী লীগ নেতা।